ঈদের আগে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ায় রপ্তানি আয় কমার পরও বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক অবস্থায়

ঈদের আগে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ায় রপ্তানি আয় কমার পরও বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক অবস্থায়

ঈদের আগে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ায় রপ্তানি আয় কমার পরও বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক অবস্থায়

এএনবিঃ বাংলাদেশ ব্যাংক জানান, রেমিট্যান্সের এই উল্লম্ফন এবং এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ২৫ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা যোগ হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ ফের তিন হাজার ৩০০ কোটি (৩৩ বিলিয়ন) ডলার অতিক্রম করেছে মাত্র দুই সপ্তাহের ব্যবধানে । জানা গেছে, মহামারি করোনার কারণে দীর্ঘদিন ইতিবাচক ধারায় থাকা এই সূচকটি কয়েক মাস ধরে পতনের ধারায় রয়েছে। তবে ঈদের আগে পরিবার পরিজন ও নিকটাত্মীয়ের কাছে বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। রেমিট্যান্সের এই ঊর্ধ্বগতির কারণে স্বস্তি ফিরেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভেও।

 করোনা সংকটের মধ্যেও মের প্রথম ১৯ দিনে রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা রেকর্ড পরিমাণ। এ সময়ে ১০৯ কোটি ১০ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে, যা গত বছরের একই সময়ের প্রায় সমান এবং আগের মাস এপ্রিলের পুরো সময়ের চেয়েও বেশি।

সাধারণত প্রতিবছরই ঈদের আগে রেমিট্যান্সে গতি আসে। গত বছরের রোজার ঈদের আগে মে মাসে ১৭৪ কোটি ৮২ লাখ ডলারের রেকর্ড রেমিট্যান্স এসেছিল। এর মধ্যে প্রথম ১৯ দিনে এসেছিল ১০৯ কোটি ৪০ লাখ ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে টানা কমছে রেমিট্যান্স। গত ফেব্রুয়ারিতে দেশে রেমিট্যান্স আসে ১৪৫ কোটি ২২ লাখ ডলার। এর পরের মাস মার্চে আসে ১২৮ কোটি ৬৮ লাখ ডলার; যা গত বছরের মার্চ মাসের চেয়ে ১৩.৩৪ শতাংশ কম। আর এপ্রিলে তা আশঙ্কাজনকহারে কমে নেমে আসে ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলারে; যা গত বছরের এপ্রিলের চেয়ে ২৪.৬১ শতাংশ কম। এ ছাড়া এটি গত ৩৩ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন ছিল। এর আগে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের সেপ্টেম্বর মাসে সর্বনিম্ন ৮৫ কোটি ৬৮ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল। 

এদিকে ঈদের আগে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ায় রপ্তানি আয় কমার পরও বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক অবস্থায় রয়েছে।

ঈদের কারণে মে মাসে রেমিট্যান্সে আশানুরূপ গতি ফিরেছে।