করোনা হাসপাতালে ১০ হাজার সিট ফাঁকার ‘নেপথ্যে’

করোনা হাসপাতালে ১০ হাজার সিট ফাঁকার ‘নেপথ্যে’

করোনা হাসপাতালে ১০ হাজার সিট ফাঁকার ‘নেপথ্যে’

এএনবি ঃ দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরুর দিকে অধিকাংশ কোভিড-১৯ রোগীই চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যেত। কিন্তু রোগী বাড়ার সঙ্গে হাসপাতালগুলোতে ব্যাপক অনিয়ম ফুটে উঠে। অব্যবস্থাপনা, গলাকাটা বিল, ঠিকমতো চিকিৎসা না পাওয়া, আর্থিক সামর্থ্য না থাকাসহ বিভিন্ন অভিযোগ উঠে।

হাসপাতালগুলোতে প্রায় তিনভাগের দুইভাগ বেডই খালি পড়ে রয়েছে

এসব কারণে ধীরে ধীরে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া বন্ধ করে দিচ্ছেন আক্রান্ত রোগীরা। ফলে বর্তমানে করোনা চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত হাসপাতালগুলোতে প্রায় তিনভাগের দুইভাগ বেডই খালি পড়ে রয়েছে।

এ বিষয়ে আজ বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, সারাদেশে করোনা রোগীদের জন্য নির্ধারিত হাসপাতালগুলোতে সাধারণ বেড রয়েছে ১৪ হাজার ৯৪৫টি। এগুলোতে রোগী আছেন মাত্র ৪ হাজার ৩৬১ জন। আর বেড খালি পড়ে আছে ১০ হাজার ৫৮৪টি।

তবে আইসিইউ বেডগুলোতে রোগী একটু বেশি আছে। বর্তমানে সারাদেশে আইসিইউ বেড রয়েছে ৩৯৪টি। এর মধ্যে ২২৬টিতে রোগী ভর্তি আছে। বাকি ১৬৮টি খালি পড়ে আছে।

রাজধানী ঢাকায় করোনা রোগীদের জন্য ৬ হাজার ৩০৫টি সাধারণ বেড রয়েছে। এগুলোতে ২ হাজার ১৯৯ জন রোগী ভর্তি আছেন। খালি আছে ৪ হাজার ১০৬টি। আইসিইউ বেড আছে ১৪২টি। রোগী ভর্তি আছেন ১০৮ জন এবং খালি ৩৪টি আছে বলে জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. নাসিমা সুলতানা।

চট্টগ্রাম মহানগরীতে সাধারণ বেড আছে ৬৫৭টি। এগুলোতে করোনা রোগী ভর্তি আছেন ৩১৩ জন এবং খালি পড়ে আছে ৩৪৪টি। আইসিইউ বেড রয়েছে ৩৯টি। এগুলোর মধ্যে ১৫টিতে রোগী ভর্তি আছেন এবং খালি ২৪টি।